যে কোনো অর্ডারে ২০% ছাড়
SAFE & SECURE PAYMENT
Filter
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

আমাদের রবীন্দ্রনাথ

300
মানবজীবনের প্রতিটি অনুপুঙ্খে, সম্পদে-বিপদে, আনন্দে-বেদনায়, উৎসবে-ব্যসনে-দুর্ভিক্ষে- রাষ্ট্রবিপ্লবে, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মারি ও মড়কে, মননের দহন ও শৈত্যে তিনি আজও চিরসখা, প্রতিটি বিগত ও অনাগত ভােরের বৈতালিক। তিনি যত গদ্য লিখেছেন,সম্ভবত তাঁকে নিয়ে এর চেয়ে ঢের বেশি গদ্য লেখা হয়েছে। তবু তাঁর প্রতিটি শব্দ যেন একেকটি অনাবিষ্কৃত দূর নক্ষত্র—সেগুলাে থেকে ক্রমে আলো আসিতেছে। এই অনিঃশেষ আলােকরাশিকে সময়ােপযােগী বােধ ও মননে বিম্বিত ও প্রতিবিম্বিত করার বিশ্বস্ত দৰ্পণ ' আমাদের রবীন্দ্রনাথ ' গ্রন্থটি। রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে চর্বিত চর্বণ নয়, বরং ষড়যন্ত্রময় সাংস্কৃতিক রাজনীতি ও দানবীয় না-সংস্কৃতি আক্রান্ত মানুষের প্রিয় পৃথিবীকে সব দিক দিয়ে রক্ষা করার কবচকুণ্ডল এই পুস্তক-প্রয়াস।
Quick View
Add to Wishlist

আমাদের রবীন্দ্রনাথ

300
মানবজীবনের প্রতিটি অনুপুঙ্খে, সম্পদে-বিপদে, আনন্দে-বেদনায়, উৎসবে-ব্যসনে-দুর্ভিক্ষে- রাষ্ট্রবিপ্লবে, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মারি ও মড়কে, মননের দহন ও শৈত্যে তিনি আজও চিরসখা, প্রতিটি বিগত ও অনাগত ভােরের বৈতালিক। তিনি যত গদ্য লিখেছেন,সম্ভবত তাঁকে নিয়ে এর চেয়ে ঢের বেশি গদ্য লেখা হয়েছে। তবু তাঁর প্রতিটি শব্দ যেন একেকটি অনাবিষ্কৃত দূর নক্ষত্র—সেগুলাে থেকে ক্রমে আলো আসিতেছে। এই অনিঃশেষ আলােকরাশিকে সময়ােপযােগী বােধ ও মননে বিম্বিত ও প্রতিবিম্বিত করার বিশ্বস্ত দৰ্পণ ' আমাদের রবীন্দ্রনাথ ' গ্রন্থটি। রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে চর্বিত চর্বণ নয়, বরং ষড়যন্ত্রময় সাংস্কৃতিক রাজনীতি ও দানবীয় না-সংস্কৃতি আক্রান্ত মানুষের প্রিয় পৃথিবীকে সব দিক দিয়ে রক্ষা করার কবচকুণ্ডল এই পুস্তক-প্রয়াস।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

আসামে বাঙালি মৃগয়া

300
আসামে বাঙালি মৃগয়া গ্রন্থের প্রকৃত লেখক হলো সময়। না, এ কোনো বিনয়-বচন নয়; এর চেয়ে বড়ো সত্যবদ্ধ স্বর আর কিছু নেই এই মুহূর্তে। এই বইতে যেসব বয়ান ও তথ্য সংকলিত হয়েছে,তা নিয়ে ইতিমধ্যে দুঃসময়ের জটিলতর আবর্ত তৈরি হয়ে গেছে। এ যেন দ্রৌপদীর শাড়ির মতো অফুরান; তাতে ভাজের পরে ভাঁজ, পরতের পরে পরত। আসামের বাঙালির শত্রু ঘরে এবং বাইরে আরও দুর্বার হয়ে পড়েছে। নাগরিকপঞ্জি তৈরির অজুহাতে রাষ্ট্রশক্তি বাঙালির জাতিসাকে মুছে ফেলতে চাইছে। শুধু আসামের বাঙালিই বিপন্ন নয়, পশ্চিমবঙ্গ সহ ভারতের সর্বত্র বাংলাভাষী হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্থান নীতির ফ্যাসিবাদী সন্ত্রাসে সর্বস্বান্ত হতে বসেছেন। এত বড়ো দুঃসময় দেশভাগের আঁধির প্রহরেও দেখা যায়নি। আসামে এবং পশ্চিমবঙ্গে, ভারতের অন্যান্য প্রদেশেও, শত্রুপক্ষ উইপোকাদের নিশ্চিহ্ন করার প্রাথমিক উদ্যমে সফল হয়ে গেছে। হিন্দুত্ববাদের এবং ইসলামি মৌলবাদের চোরাবালিতে ডুবে যাচ্ছে বাঙালি। সাধারণ নির্বাচনের ঢাকের বাদ্যি হয়ে পড়েছে মেকি দেশপ্রেম। শহরে ও মফস্বলে বাঙালি আর বাঙালি নেই; তারা সেই হিন্দুস্তানের কাছে মেরুদণ্ড সঁপে দিয়েছে যা তাদের জাতিসত্তাকে মধ্যযুগের ঘনঘোর অন্ধকারে ডুবিয়ে দিয়েছে। যা শুরু হয়েছিল আসামের বাঙালিদের নাগরিক অধিকার কেড়ে নেওয়ার প্রক্রিয়ায় অচিরেই তা জাতীয় মহাশ্মশানে এবং সমাধিভূমিতে পরিসমাপ্ত হবে। বোধ-বুদ্ধি বিসর্জন দিয়ে বাঙালি হিন্দি-আধিপত্যবাদের লেজুড়বৃত্তি করছে প্রকাশ্যে। তাই সীমাহীন দুর্নীতি, প্রশাসনিক নৈরাজ্য, সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ও বিদ্বেষের মহামারী আর্থসামাজিক বিনাশ ও কৃত্রিম দেশপ্রেমের বানানো বন্যায় হারিয়ে যেতে বসেছে। আর এই সুযোগে বাঙালি-বিদ্বেষী অসমিয়া আধিপত্যবাদ (এবং বিভিন্ন প্রাদেশিক প্রভুত্ববাদ) ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রশক্তির প্রকাশ্য মদতে বাঙালি-মৃগয়ার অস্তিম পর্যায়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। রণক্লান্ত সমাজকর্মী ও মানবাধিকারকর্মীরা দুরূহতম এই সংকটে নিশ্চয় উটপাখির মতো বালিতে মুখ গুঁজে দেবেন না। যে-কোনোভাবে সীমাহীন রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মোকাবিলায় তাদের তৈরি থাকতেই হবে। এই বইকে যদি আমাদের সামূহিক জেগে থাকার দস্তাবেজ হিসেবে গ্রহণ করেন পড়ুয়ারা, তবেই এ প্রয়াস সার্থক হবে। আমরা যারা ক্ষমতা কেন্দ্রের লজ্জাহীন আক্রোশের প্রতি তর্জনি সংকেত করতে চেয়েছি, আত্মিক নৈরাজ্যের মুখোমুখি হয়েও জাতিসত্তার প্রশ্নে আপসরফা করতে রাজি নই। এই আমাদের সমবায়ী স্বর ও প্রত্যয় যা বইতে ব্যক্ত হয়েছে। বাঙালি আসামে থাকুক বা পশ্চিমবঙ্গে বা অন্য কোথাও আমরা বারবার এই ঘোষণাই করব : বাঙালির কোনো হিন্দু-মুসলমান-খ্রিস্টীয়-বৌদ্ধ হয় না; বাঙালি শুধুই বাঙালি। আসামে বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষার যুদ্ধ জারি থাকবে...
Quick View
Add to Wishlist

আসামে বাঙালি মৃগয়া

300
আসামে বাঙালি মৃগয়া গ্রন্থের প্রকৃত লেখক হলো সময়। না, এ কোনো বিনয়-বচন নয়; এর চেয়ে বড়ো সত্যবদ্ধ স্বর আর কিছু নেই এই মুহূর্তে। এই বইতে যেসব বয়ান ও তথ্য সংকলিত হয়েছে,তা নিয়ে ইতিমধ্যে দুঃসময়ের জটিলতর আবর্ত তৈরি হয়ে গেছে। এ যেন দ্রৌপদীর শাড়ির মতো অফুরান; তাতে ভাজের পরে ভাঁজ, পরতের পরে পরত। আসামের বাঙালির শত্রু ঘরে এবং বাইরে আরও দুর্বার হয়ে পড়েছে। নাগরিকপঞ্জি তৈরির অজুহাতে রাষ্ট্রশক্তি বাঙালির জাতিসাকে মুছে ফেলতে চাইছে। শুধু আসামের বাঙালিই বিপন্ন নয়, পশ্চিমবঙ্গ সহ ভারতের সর্বত্র বাংলাভাষী হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্থান নীতির ফ্যাসিবাদী সন্ত্রাসে সর্বস্বান্ত হতে বসেছেন। এত বড়ো দুঃসময় দেশভাগের আঁধির প্রহরেও দেখা যায়নি। আসামে এবং পশ্চিমবঙ্গে, ভারতের অন্যান্য প্রদেশেও, শত্রুপক্ষ উইপোকাদের নিশ্চিহ্ন করার প্রাথমিক উদ্যমে সফল হয়ে গেছে। হিন্দুত্ববাদের এবং ইসলামি মৌলবাদের চোরাবালিতে ডুবে যাচ্ছে বাঙালি। সাধারণ নির্বাচনের ঢাকের বাদ্যি হয়ে পড়েছে মেকি দেশপ্রেম। শহরে ও মফস্বলে বাঙালি আর বাঙালি নেই; তারা সেই হিন্দুস্তানের কাছে মেরুদণ্ড সঁপে দিয়েছে যা তাদের জাতিসত্তাকে মধ্যযুগের ঘনঘোর অন্ধকারে ডুবিয়ে দিয়েছে। যা শুরু হয়েছিল আসামের বাঙালিদের নাগরিক অধিকার কেড়ে নেওয়ার প্রক্রিয়ায় অচিরেই তা জাতীয় মহাশ্মশানে এবং সমাধিভূমিতে পরিসমাপ্ত হবে। বোধ-বুদ্ধি বিসর্জন দিয়ে বাঙালি হিন্দি-আধিপত্যবাদের লেজুড়বৃত্তি করছে প্রকাশ্যে। তাই সীমাহীন দুর্নীতি, প্রশাসনিক নৈরাজ্য, সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ও বিদ্বেষের মহামারী আর্থসামাজিক বিনাশ ও কৃত্রিম দেশপ্রেমের বানানো বন্যায় হারিয়ে যেতে বসেছে। আর এই সুযোগে বাঙালি-বিদ্বেষী অসমিয়া আধিপত্যবাদ (এবং বিভিন্ন প্রাদেশিক প্রভুত্ববাদ) ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রশক্তির প্রকাশ্য মদতে বাঙালি-মৃগয়ার অস্তিম পর্যায়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। রণক্লান্ত সমাজকর্মী ও মানবাধিকারকর্মীরা দুরূহতম এই সংকটে নিশ্চয় উটপাখির মতো বালিতে মুখ গুঁজে দেবেন না। যে-কোনোভাবে সীমাহীন রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মোকাবিলায় তাদের তৈরি থাকতেই হবে। এই বইকে যদি আমাদের সামূহিক জেগে থাকার দস্তাবেজ হিসেবে গ্রহণ করেন পড়ুয়ারা, তবেই এ প্রয়াস সার্থক হবে। আমরা যারা ক্ষমতা কেন্দ্রের লজ্জাহীন আক্রোশের প্রতি তর্জনি সংকেত করতে চেয়েছি, আত্মিক নৈরাজ্যের মুখোমুখি হয়েও জাতিসত্তার প্রশ্নে আপসরফা করতে রাজি নই। এই আমাদের সমবায়ী স্বর ও প্রত্যয় যা বইতে ব্যক্ত হয়েছে। বাঙালি আসামে থাকুক বা পশ্চিমবঙ্গে বা অন্য কোথাও আমরা বারবার এই ঘোষণাই করব : বাঙালির কোনো হিন্দু-মুসলমান-খ্রিস্টীয়-বৌদ্ধ হয় না; বাঙালি শুধুই বাঙালি। আসামে বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষার যুদ্ধ জারি থাকবে...
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

নব্য তোতাকাহিনী ও অন্যান্য

300
আমাদের সময় ও সমাজ ইদানীং বহুধা আক্রান্ত। অভ্যন্তরীন উপনিবেশবাদ ক্রমশ আততায়ীর চরিত্র অর্জন করে ইতিহাস ভাবাদর্শ-প্রগতি মূল্যবোধকে নস্যাত করতে উদ্যত। হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্তান নীতির ফ্যাসিবাদী পতাকাবাহীরা গত সাত বছরে উত্তরোত্তর বিষক্রিয়া ছড়িয়ে দিয়ে সমাজমন ও রাষ্ট্রসংস্থাকে পঙ্গু করে ফেলেছে। তথাকথিত জাতীয় শিক্ষানীতি একতরফাভাবে চাপিয়ে দিয়ে শাসকেরা আগামী প্রজন্মগুলির মগজধোলাই করে নিজেদের পাইকবরকন্দাজে পরিণত করতে চাইছে। রবীন্দ্রনাথের তোতা কাহিনির বিকটতম সংস্করণ তৈরি করেছে ধর্মান্ধ অত্যাচারী শক্তি। সামূহিক সর্বনাশের এই কালবেলায় নব্যতোতাকাহিনির ভয়ংকর স্বরূপ উদঘাটন করেছেন মননশীল প্রাবন্ধিক তপোধীর ভট্টাচার্য। সেইসঙ্গে রুগ্ন ও নিরালোক সমাজের বিপন্নতার বিভিন্ন দিকের ওপর বিশ্লেষণী আলোকপাত করেছেন আরো কিছু সময়ের স্বর খচিত প্রবন্ধে।
Quick View
Add to Wishlist

নব্য তোতাকাহিনী ও অন্যান্য

300
আমাদের সময় ও সমাজ ইদানীং বহুধা আক্রান্ত। অভ্যন্তরীন উপনিবেশবাদ ক্রমশ আততায়ীর চরিত্র অর্জন করে ইতিহাস ভাবাদর্শ-প্রগতি মূল্যবোধকে নস্যাত করতে উদ্যত। হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্তান নীতির ফ্যাসিবাদী পতাকাবাহীরা গত সাত বছরে উত্তরোত্তর বিষক্রিয়া ছড়িয়ে দিয়ে সমাজমন ও রাষ্ট্রসংস্থাকে পঙ্গু করে ফেলেছে। তথাকথিত জাতীয় শিক্ষানীতি একতরফাভাবে চাপিয়ে দিয়ে শাসকেরা আগামী প্রজন্মগুলির মগজধোলাই করে নিজেদের পাইকবরকন্দাজে পরিণত করতে চাইছে। রবীন্দ্রনাথের তোতা কাহিনির বিকটতম সংস্করণ তৈরি করেছে ধর্মান্ধ অত্যাচারী শক্তি। সামূহিক সর্বনাশের এই কালবেলায় নব্যতোতাকাহিনির ভয়ংকর স্বরূপ উদঘাটন করেছেন মননশীল প্রাবন্ধিক তপোধীর ভট্টাচার্য। সেইসঙ্গে রুগ্ন ও নিরালোক সমাজের বিপন্নতার বিভিন্ন দিকের ওপর বিশ্লেষণী আলোকপাত করেছেন আরো কিছু সময়ের স্বর খচিত প্রবন্ধে।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

পশ্চিমের জানালা

300
জীবনের শেষ নেই, পড়ার শেষ নেই। তাই তত্ত্বের শেষ নেই, যুদ্ধেরও শেষ নেই। অবিভাজ্য মানববিশ্বের অধিবাসী আমরা প্রত্যেকে। তাই মানুষের জগতের কোনাে অর্জন, কোনাে উদভাসন আমাদের পক্ষে দূরবর্তী নয়। পশ্চিমে আজি খুলিয়াছে দ্বার । লিখেছিলেন বাংলা ভাষার মহত্তম কবি। বাঙালির মনন পর্বে-পর্বে উৎসুক ভাবে সাড়া দিয়েছে যখনই পশ্চিমে অভিনব কোনাে জীবনদর্শন কিংবা তত্ত্বভাবনা অথবা অসম্পূর্ণ কোনাে সাহিত্যকৃতি সূর্যের উজ্জ্বল অনুভব ছড়িয়ে দিয়েছে। গত তিন দশকে জীবন যত জটিলতর হয়েছে, তত্ত্ববিশ্বের সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিচ্ছুরণ থেকে বাঙালিও মননের নতুন আয়ুধ সংগ্রহ করেছে। নীৎশে-কিয়ের্কেগার্দ, সার্-বােভােয়া, ফুকো-দেরিদা, লার্ক-একো কিংবা হ্যামলেট-ফাউস্ট, বাডেন ওয়েটিং ফর গােড়াে বাঙালির মনােভুবনেও আলাে-ছায়ার দ্বিরালাপ তৈরি করে চলেছে। ' পশ্চিমের জানালা ' বইতে ধরা রইল সেই আগ্রহেরই নিদর্শন।
Quick View
Add to Wishlist

পশ্চিমের জানালা

300
জীবনের শেষ নেই, পড়ার শেষ নেই। তাই তত্ত্বের শেষ নেই, যুদ্ধেরও শেষ নেই। অবিভাজ্য মানববিশ্বের অধিবাসী আমরা প্রত্যেকে। তাই মানুষের জগতের কোনাে অর্জন, কোনাে উদভাসন আমাদের পক্ষে দূরবর্তী নয়। পশ্চিমে আজি খুলিয়াছে দ্বার । লিখেছিলেন বাংলা ভাষার মহত্তম কবি। বাঙালির মনন পর্বে-পর্বে উৎসুক ভাবে সাড়া দিয়েছে যখনই পশ্চিমে অভিনব কোনাে জীবনদর্শন কিংবা তত্ত্বভাবনা অথবা অসম্পূর্ণ কোনাে সাহিত্যকৃতি সূর্যের উজ্জ্বল অনুভব ছড়িয়ে দিয়েছে। গত তিন দশকে জীবন যত জটিলতর হয়েছে, তত্ত্ববিশ্বের সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিচ্ছুরণ থেকে বাঙালিও মননের নতুন আয়ুধ সংগ্রহ করেছে। নীৎশে-কিয়ের্কেগার্দ, সার্-বােভােয়া, ফুকো-দেরিদা, লার্ক-একো কিংবা হ্যামলেট-ফাউস্ট, বাডেন ওয়েটিং ফর গােড়াে বাঙালির মনােভুবনেও আলাে-ছায়ার দ্বিরালাপ তৈরি করে চলেছে। ' পশ্চিমের জানালা ' বইতে ধরা রইল সেই আগ্রহেরই নিদর্শন।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

প্রতীচ্যের সৃষ্টি ভুবন

200
সমস্ত সার্থক জিজ্ঞাসাই তত্ত্বজিজ্ঞাসা। তত্ত্বের পরিশীলিত দর্পনে উদ্ভাসিত মনন ও সৃষ্টির প্রকৃত তাৎপর্য‌ই চিন্তাবিদ প্রাবান্ধিক তপোধীর ভট্টাচার্য এই ব‌ইয়ের বিভিন্ন প্রতিবেদনে স্পষ্ট করতে চেয়েছেন। তাঁর কেন্দ্রীয় প্রত্যয় হল,মানববিশ্বে সমস্ত বয়ান‌ই কোন না কোনভাবে ভাষাদর্শ খচিত। কালে-কালান্তরে,দেশে-দেশান্তরে যত সাহিত্যকৃতি উদ্ভুত হয়েছে, সময়ের স্বর ও অন্তঃস্বর পরিশীলিত হয়েছে নান্দনিক ও সামাজিক চেতনার নিগৃঢ় দ্বিবাচনিকতায়।অর্ন্তরবস্তু ও প্রকরন,শিল্পভাষা ও সংবিদ, বিশ্বাস ও মূল্যবোধের অবিরত খননে কিভাবে দ্বিরালাপে সার্বিক প্রতিষ্ঠা ঘটে, প্রতিটি বয়ানে প্রাবন্ধিক তা বিরল নৈপুণ্য বিশ্লেষণ করেছেন।আধুনিকতাবাদী ও আধুনিকোত্তরবাদী চিন্তাপ্রস্থানের বিভিন্ন বিভঙ্গ যেমন পর্যালোচিত হয়েছে তেমন‌ই অন্তর্ভেদী আলোকসম্পাতে উদ্ভাসিত হয়েছেন ফ্রেডরিক জেমসন ও রবো, ও এলিয়ট সহ মার্কেজ কার্পেস্তিয়ের ফুয়েন্তেজ।
Quick View
Add to Wishlist

প্রতীচ্যের সৃষ্টি ভুবন

200
সমস্ত সার্থক জিজ্ঞাসাই তত্ত্বজিজ্ঞাসা। তত্ত্বের পরিশীলিত দর্পনে উদ্ভাসিত মনন ও সৃষ্টির প্রকৃত তাৎপর্য‌ই চিন্তাবিদ প্রাবান্ধিক তপোধীর ভট্টাচার্য এই ব‌ইয়ের বিভিন্ন প্রতিবেদনে স্পষ্ট করতে চেয়েছেন। তাঁর কেন্দ্রীয় প্রত্যয় হল,মানববিশ্বে সমস্ত বয়ান‌ই কোন না কোনভাবে ভাষাদর্শ খচিত। কালে-কালান্তরে,দেশে-দেশান্তরে যত সাহিত্যকৃতি উদ্ভুত হয়েছে, সময়ের স্বর ও অন্তঃস্বর পরিশীলিত হয়েছে নান্দনিক ও সামাজিক চেতনার নিগৃঢ় দ্বিবাচনিকতায়।অর্ন্তরবস্তু ও প্রকরন,শিল্পভাষা ও সংবিদ, বিশ্বাস ও মূল্যবোধের অবিরত খননে কিভাবে দ্বিরালাপে সার্বিক প্রতিষ্ঠা ঘটে, প্রতিটি বয়ানে প্রাবন্ধিক তা বিরল নৈপুণ্য বিশ্লেষণ করেছেন।আধুনিকতাবাদী ও আধুনিকোত্তরবাদী চিন্তাপ্রস্থানের বিভিন্ন বিভঙ্গ যেমন পর্যালোচিত হয়েছে তেমন‌ই অন্তর্ভেদী আলোকসম্পাতে উদ্ভাসিত হয়েছেন ফ্রেডরিক জেমসন ও রবো, ও এলিয়ট সহ মার্কেজ কার্পেস্তিয়ের ফুয়েন্তেজ।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

পড়ুয়ার ছোট গল্প

200
উনিশ শতকের একান্ত নিজস্ব শিল্পকৃতি হিসেবে ছোটগল্প জন্ম নিয়েছিল জায়মান ব্যক্তিসত্তার চেতনায়। আধুনিকতার পর্বে - পর্বান্তরে ব্যক্তির স্বরূপ যত বদলে যেতে লাগল, ছােট গল্পের অন্তর্বস্তু ও প্রকরণ, ভাষাবােধ ও শিল্পিত অন্ধিষ্ট তত রূপান্তরিত হলাে। বিশ শতকের অভূতপূর্ব জটিলতা আত্মস্থ করতে-করতে ছােটগল্প থেকে এমন কী ঝরে গেল গল্পও। এই অনিবার্য প্রবণতা লেখক-সত্তার ভূমিকাকেও অনবরত বদলে দিচ্ছে। সময়ের অভিঘাতে গ্রহীতা পাঠকের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তিত হলাে না কেবল, লেখক-কেন্দ্রিকতাও প্রত্যাখ্যানের মুখােমুখি হলাে। পড়ুয়ার চোখে ছােটগল্পের প্রতিবেদন কত আশ্চর্য ইন্দ্রজালের উৎস, তার কিছু নিদর্শন গ্রথিত রইল এই বইয়ে। বাংলা সাহিত্যে যাঁরা গল্প বিশ্বের স্থপতি হিসেবে প্রসিদ্ধ, তাদের রচনা পাঠের আনন্দে শরিক হবেন উৎসুক পড়ুয়ারা - এই প্রত্যয়ে নিবেদিত হচ্ছে শিল্পিত জীবনের কিছু নিবিড় উন্মােচন ' পড়ুয়ার ছোট গল্প ' গ্রন্থে।
Quick View
Add to Wishlist

পড়ুয়ার ছোট গল্প

200
উনিশ শতকের একান্ত নিজস্ব শিল্পকৃতি হিসেবে ছোটগল্প জন্ম নিয়েছিল জায়মান ব্যক্তিসত্তার চেতনায়। আধুনিকতার পর্বে - পর্বান্তরে ব্যক্তির স্বরূপ যত বদলে যেতে লাগল, ছােট গল্পের অন্তর্বস্তু ও প্রকরণ, ভাষাবােধ ও শিল্পিত অন্ধিষ্ট তত রূপান্তরিত হলাে। বিশ শতকের অভূতপূর্ব জটিলতা আত্মস্থ করতে-করতে ছােটগল্প থেকে এমন কী ঝরে গেল গল্পও। এই অনিবার্য প্রবণতা লেখক-সত্তার ভূমিকাকেও অনবরত বদলে দিচ্ছে। সময়ের অভিঘাতে গ্রহীতা পাঠকের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তিত হলাে না কেবল, লেখক-কেন্দ্রিকতাও প্রত্যাখ্যানের মুখােমুখি হলাে। পড়ুয়ার চোখে ছােটগল্পের প্রতিবেদন কত আশ্চর্য ইন্দ্রজালের উৎস, তার কিছু নিদর্শন গ্রথিত রইল এই বইয়ে। বাংলা সাহিত্যে যাঁরা গল্প বিশ্বের স্থপতি হিসেবে প্রসিদ্ধ, তাদের রচনা পাঠের আনন্দে শরিক হবেন উৎসুক পড়ুয়ারা - এই প্রত্যয়ে নিবেদিত হচ্ছে শিল্পিত জীবনের কিছু নিবিড় উন্মােচন ' পড়ুয়ার ছোট গল্প ' গ্রন্থে।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

বাঙালির সৃষ্টি ও মনন : কালে কালান্তরে

300
বহমান সময়ের বিচিত্র স্বর ও অন্তঃস্বর খচিত বাংলা সাহিত্য পর্বে - পর্বান্তরে কীভাবে রূপান্তরিত হয়েছে, এ সময়ের অগ্রণী তত্ত্ববিদ ও ভাষ্যকার তপোধীর ভট্টাচার্য ' বাঙালির সৃষ্টি ও মনন : কালে কালান্তরে ' গ্রন্থের বিভিন্ন প্রতিবেদনে তার মনােজ ভাষ্য উপস্থাপিত করেছেন। চর্যাপদে বাঙালি চৈতন্যে যে বহুমাত্রিক মন্থনের সূত্রপাত হয়েছিল, তার অভিঘাত নানা পরিসরে বিস্তৃত হলাে ক্রমশ। মধ্যযুগে বাঙালির বিশ্ববীক্ষা শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক বৃত্তে সীমিত ছিল না; লােকায়ত জীবনচর্যার সঙ্গে সংশ্লেষণ অব্যাহত ছিল আগাগােড়া। রুদ্ধতা ও মুক্তি-এষণার দ্বিবাচনিকতায় পথ থেকে পথান্তরে এগিয়ে গেছে বাঙালির মনন ও সৃষ্টি। প্রাক-আধুনিক যুগ থেকে আধুনিক কালে বহমান চৈতন্যে কীভাবে বিধৃত হয়েছে ছেদ ও ধারাবাহিকতার দ্বিরালাপ, সেই সমাজ-সত্যের উন্মােচন লেখকের অন্বিষ্ট। শ্রদ্ধাশীল অনুসন্ধিৎসার সঙ্গে সম্পৃক্ত যৌক্তিক জিজ্ঞাসা প্রতিটি বয়ানের মূল সঞ্চালক।
Quick View
Add to Wishlist

বাঙালির সৃষ্টি ও মনন : কালে কালান্তরে

300
বহমান সময়ের বিচিত্র স্বর ও অন্তঃস্বর খচিত বাংলা সাহিত্য পর্বে - পর্বান্তরে কীভাবে রূপান্তরিত হয়েছে, এ সময়ের অগ্রণী তত্ত্ববিদ ও ভাষ্যকার তপোধীর ভট্টাচার্য ' বাঙালির সৃষ্টি ও মনন : কালে কালান্তরে ' গ্রন্থের বিভিন্ন প্রতিবেদনে তার মনােজ ভাষ্য উপস্থাপিত করেছেন। চর্যাপদে বাঙালি চৈতন্যে যে বহুমাত্রিক মন্থনের সূত্রপাত হয়েছিল, তার অভিঘাত নানা পরিসরে বিস্তৃত হলাে ক্রমশ। মধ্যযুগে বাঙালির বিশ্ববীক্ষা শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক বৃত্তে সীমিত ছিল না; লােকায়ত জীবনচর্যার সঙ্গে সংশ্লেষণ অব্যাহত ছিল আগাগােড়া। রুদ্ধতা ও মুক্তি-এষণার দ্বিবাচনিকতায় পথ থেকে পথান্তরে এগিয়ে গেছে বাঙালির মনন ও সৃষ্টি। প্রাক-আধুনিক যুগ থেকে আধুনিক কালে বহমান চৈতন্যে কীভাবে বিধৃত হয়েছে ছেদ ও ধারাবাহিকতার দ্বিরালাপ, সেই সমাজ-সত্যের উন্মােচন লেখকের অন্বিষ্ট। শ্রদ্ধাশীল অনুসন্ধিৎসার সঙ্গে সম্পৃক্ত যৌক্তিক জিজ্ঞাসা প্রতিটি বয়ানের মূল সঞ্চালক।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

সমবায়ী পাঠ

600
এই বিনির্মাণবাদী লেখকের ভেতরে বাস করে যে 'অন্য মানুষ', তার সৃষ্টির সাগরগর্ভে সন্ধানী আলো ফেলে মণি মুক্তো-প্রবালবেলা খোঁজ নেওয়াই এই সমবায়ী পাঠের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। কেন এই লক্ষ্যভেদের প্রয়াস এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়াটা এখানে জরুরি। ছোটোগল্প দিয়ে যাঁর বহুগামী সৃষ্টিপথের প্রথম পা ফেলা, কবিতা যাঁর প্রথম পছন্দ, তার প্রবন্ধ ও সমালোচনার নতুন ধারা আজ বাংলা সাহিত্যে নবদিগন্তের উন্মোচক। শেষোক্ত শব্দদুটি খুব ভেবেচিন্তেই ব্যবহার করা হল এখানে। এতদিন ধরে বাংলা সাহিত্যে সমালোচনার যে-ধারা চলে আসছিল, সেই ধারায় তথ্যের বিস্ফোরণ ছিল, পাণ্ডিত্য ছিল, কিন্তু চিন্তা ছিল কখনো অতীতচারী ও ধ্বংসপ্রবণ, কখনো বা অবক্ষয়ী। মাথার ওপরে রবীন্দ্রনাথ এবং তৎসঙ্গে দু-একজনের ব্যতিক্রমী চিন্তাকে বাদ দিলে বাখতিন কথিত 'seeing eye' প্রায় কারোরই ছিল না। ছিল না মুল্যবোধগত অবস্থান থেকে সাহিত্য-বিচারের মানদণ্ড। রেনেসাঁর হাত ধরে গড়ে ওঠা বঙ্গীয় আধুনিকতা সমালোচনার যে মাপকাঠিটি আমাদের হাতে ধরিয়ে দিয়েছিল তা ছিল নাকের বিপরীতে  নরুণ। আর ঐ নরুনের আমদানি হয়েছিল সাত সাগর পাড়ি দিয়ে আসা ঔপনিবেশিক শক্তির শিল্প বিপ্লবোত্তর জাহাজে করে। উপনিবেশীকৃত চেতনায় দেশীয় আধার ঝাপসা হয়ে গিয়েছিল ক্রমশ। অবক্ষয়ী আধুনিকতার করোনিয়াজনিত রোগে দেখার চোখ ক্রমশ অন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এহেন দুর্দিনে পশ্চিমের জানালা থেকে আলো আহরণ করে বাংলা সাহিত্যে সমালোচনার ধারায় নতুন চক্ষুদান করলেন যে চক্ষুষ্মান সেই অন্য মানুষ’-এর নাম তপোধীর ভট্টাচার্য। শুধু তত্ত্ব নয়, বাংলা সাহিত্যের সমালোচনার ক্ষেত্রে সেই তত্ত্বের প্রয়োগ যে বিকল্প নন্দনের দ্যুতি ছড়িয়েছে তা এককথায় অপূর্ব। সাংস্কৃতিক যুদ্ধের ময়দানে সমস্তরকম প্রতিকূলতা, বিপথগামিতা ও ষড়যন্ত্রকে বাপধোলা তলোয়ারের সুশিক্ষিত চালনায় জয় করে নিয়ে বীক্ষণের নব ভাগীরথীধারা বইয়ে দিয়েছেন যে-ভগীরথ তাঁর সৃষ্টির ভুবনটিকে চিনে নেওয়াটা আজ আগামীকালের জন্যে খুবই জরুরি।
Quick View
Add to Wishlist

সমবায়ী পাঠ

600
এই বিনির্মাণবাদী লেখকের ভেতরে বাস করে যে 'অন্য মানুষ', তার সৃষ্টির সাগরগর্ভে সন্ধানী আলো ফেলে মণি মুক্তো-প্রবালবেলা খোঁজ নেওয়াই এই সমবায়ী পাঠের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। কেন এই লক্ষ্যভেদের প্রয়াস এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়াটা এখানে জরুরি। ছোটোগল্প দিয়ে যাঁর বহুগামী সৃষ্টিপথের প্রথম পা ফেলা, কবিতা যাঁর প্রথম পছন্দ, তার প্রবন্ধ ও সমালোচনার নতুন ধারা আজ বাংলা সাহিত্যে নবদিগন্তের উন্মোচক। শেষোক্ত শব্দদুটি খুব ভেবেচিন্তেই ব্যবহার করা হল এখানে। এতদিন ধরে বাংলা সাহিত্যে সমালোচনার যে-ধারা চলে আসছিল, সেই ধারায় তথ্যের বিস্ফোরণ ছিল, পাণ্ডিত্য ছিল, কিন্তু চিন্তা ছিল কখনো অতীতচারী ও ধ্বংসপ্রবণ, কখনো বা অবক্ষয়ী। মাথার ওপরে রবীন্দ্রনাথ এবং তৎসঙ্গে দু-একজনের ব্যতিক্রমী চিন্তাকে বাদ দিলে বাখতিন কথিত 'seeing eye' প্রায় কারোরই ছিল না। ছিল না মুল্যবোধগত অবস্থান থেকে সাহিত্য-বিচারের মানদণ্ড। রেনেসাঁর হাত ধরে গড়ে ওঠা বঙ্গীয় আধুনিকতা সমালোচনার যে মাপকাঠিটি আমাদের হাতে ধরিয়ে দিয়েছিল তা ছিল নাকের বিপরীতে  নরুণ। আর ঐ নরুনের আমদানি হয়েছিল সাত সাগর পাড়ি দিয়ে আসা ঔপনিবেশিক শক্তির শিল্প বিপ্লবোত্তর জাহাজে করে। উপনিবেশীকৃত চেতনায় দেশীয় আধার ঝাপসা হয়ে গিয়েছিল ক্রমশ। অবক্ষয়ী আধুনিকতার করোনিয়াজনিত রোগে দেখার চোখ ক্রমশ অন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এহেন দুর্দিনে পশ্চিমের জানালা থেকে আলো আহরণ করে বাংলা সাহিত্যে সমালোচনার ধারায় নতুন চক্ষুদান করলেন যে চক্ষুষ্মান সেই অন্য মানুষ’-এর নাম তপোধীর ভট্টাচার্য। শুধু তত্ত্ব নয়, বাংলা সাহিত্যের সমালোচনার ক্ষেত্রে সেই তত্ত্বের প্রয়োগ যে বিকল্প নন্দনের দ্যুতি ছড়িয়েছে তা এককথায় অপূর্ব। সাংস্কৃতিক যুদ্ধের ময়দানে সমস্তরকম প্রতিকূলতা, বিপথগামিতা ও ষড়যন্ত্রকে বাপধোলা তলোয়ারের সুশিক্ষিত চালনায় জয় করে নিয়ে বীক্ষণের নব ভাগীরথীধারা বইয়ে দিয়েছেন যে-ভগীরথ তাঁর সৃষ্টির ভুবনটিকে চিনে নেওয়াটা আজ আগামীকালের জন্যে খুবই জরুরি।
Add to cartView cart
Quick View
Add to Wishlist
CompareCompare
Add to cartView cart

সময় অসময় নিঃসময়

180
আমাদের লেখায় বড়াে নির্জনতা এখন। হয়তাে এই নির্জনতায় বিষাদ নেই তত। আছে উদ্ভট মান্যতার বােধ ; মান্যতা বলব, বৈধতা নয়। এখন আমরা প্রাজ্ঞ হতে পারি না সহজে। তাই আমাদের ইদানীংকার পাঠকৃতিতে দেখতে পাই-সমস্ত কেমন যেন আপাত, ত্রিশঙ্কু, চূড়ান্তবিন্দু থেকে স্থিরীকৃত দুরত্বে রুদ্ধ। নিশ্চয় এই বােধও সময়-শাসিত। কিন্তু কীভাবে অস্বীকার করি যে আজকের লেখকেরা এবং আলােচকেরা সিদ্ধান্ত এড়িয়ে যাওয়াতে পারদর্শী? গভীর গভীরতর কোনাে কারণে, সম্ভবত বিশ্বায়নের ছলে সংক্রামিত নির্মানবায়নের প্রভাবে, আমাদের সমস্ত বােধই অসাড় আজ। দাতা যেখানে, গ্রহীতাও সেখানে। ভুল প্রমাণিত হতে বড়া ভয়। প্রতিটি পাঠকৃতি যে-ধরনের প্রত্যাশা জাগিয়ে শুরু হয়, আপাত-সমাপ্তির বিন্দুতে পৌছে দেখি, প্রত্যাশাকে কৌশলে পাশ কাটিয়ে গেছে বৌদ্ধিক চাতুর্য। ব্যতিক্রম আছে, কিন্তু তা তাে নিয়মকেই প্রমাণিত করে। এ সময়ের কবি ও কথাকারেরা, প্রাবন্ধিক ও সাংস্কৃতিক যােদ্ধারা এই বাচনের যথার্থতা খুঁজুন তাদের সৃষ্টি ও জীবনের যুগলবন্দি পাঠকৃতিতে। কিংবা প্রতিপ্রশ্ন করুন। বাঙালির সমস্ত ভুবনে অব্যাহত থাকুক এই খোঁজা বা প্রতিপ্রশ্ন ; হয়তাে পরিসর অনুযায়ী মীমাংসা ভিন্ন হবে, হয়তাে কোনাে মীমাংসাই হবে না, তবু। ' সময় অসময় নিঃসময় ' গ্রন্থটি সাহিত্যচর্চার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
Quick View
Add to Wishlist

সময় অসময় নিঃসময়

180
আমাদের লেখায় বড়াে নির্জনতা এখন। হয়তাে এই নির্জনতায় বিষাদ নেই তত। আছে উদ্ভট মান্যতার বােধ ; মান্যতা বলব, বৈধতা নয়। এখন আমরা প্রাজ্ঞ হতে পারি না সহজে। তাই আমাদের ইদানীংকার পাঠকৃতিতে দেখতে পাই-সমস্ত কেমন যেন আপাত, ত্রিশঙ্কু, চূড়ান্তবিন্দু থেকে স্থিরীকৃত দুরত্বে রুদ্ধ। নিশ্চয় এই বােধও সময়-শাসিত। কিন্তু কীভাবে অস্বীকার করি যে আজকের লেখকেরা এবং আলােচকেরা সিদ্ধান্ত এড়িয়ে যাওয়াতে পারদর্শী? গভীর গভীরতর কোনাে কারণে, সম্ভবত বিশ্বায়নের ছলে সংক্রামিত নির্মানবায়নের প্রভাবে, আমাদের সমস্ত বােধই অসাড় আজ। দাতা যেখানে, গ্রহীতাও সেখানে। ভুল প্রমাণিত হতে বড়া ভয়। প্রতিটি পাঠকৃতি যে-ধরনের প্রত্যাশা জাগিয়ে শুরু হয়, আপাত-সমাপ্তির বিন্দুতে পৌছে দেখি, প্রত্যাশাকে কৌশলে পাশ কাটিয়ে গেছে বৌদ্ধিক চাতুর্য। ব্যতিক্রম আছে, কিন্তু তা তাে নিয়মকেই প্রমাণিত করে। এ সময়ের কবি ও কথাকারেরা, প্রাবন্ধিক ও সাংস্কৃতিক যােদ্ধারা এই বাচনের যথার্থতা খুঁজুন তাদের সৃষ্টি ও জীবনের যুগলবন্দি পাঠকৃতিতে। কিংবা প্রতিপ্রশ্ন করুন। বাঙালির সমস্ত ভুবনে অব্যাহত থাকুক এই খোঁজা বা প্রতিপ্রশ্ন ; হয়তাে পরিসর অনুযায়ী মীমাংসা ভিন্ন হবে, হয়তাে কোনাে মীমাংসাই হবে না, তবু। ' সময় অসময় নিঃসময় ' গ্রন্থটি সাহিত্যচর্চার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
Add to cartView cart
Select the fields to be shown. Others will be hidden. Drag and drop to rearrange the order.
  • Image
  • SKU
  • Rating
  • Price
  • Stock
  • Availability
  • Add to cart
  • Description
  • Content
  • Weight
  • Dimensions
  • Additional information
Click outside to hide the comparison bar
Compare
    0
    Your Cart
    Your cart is emptyReturn to Shop
    ×